1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : annagilliam :
  3. [email protected] : pimgiuseppe :
  4. [email protected] : test2246679 :
  5. [email protected] : test25777112 :
  6. [email protected] : test29576900 :
  7. [email protected] : test34936489 :
  8. [email protected] : test44134420 :
  9. [email protected] : test46751630 :
  10. [email protected] : test8373381 :
বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০২:১১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন : রূপগঞ্জে নৌকা প্রতীকের গণসংযোগে হামলা,ককটেল বিষ্ফোরণ গুলিবর্ষণ ককটেল উদ্ধার, আহত ১০ জানাযা শেষে আদমজীনগর কেন্দ্রীয় কবরস্থানে দাফন গরীবের বন্ধু আলা’র শেষ বিদায়ে মানুষের ঢল টি-টুয়েন্টিতে পিছিয়ে আছি, বিভিন্ন সাইটে উন্নতি করা প্রয়োজন : বিসিবি’র পরিচালক তানভীর আহমেদ টিটু ‘ছোট ভাই হারালাম’ : কাউন্সিলর আলার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে বললেন শামীম ওসমান জনগনের দোয়া ও ভালবাসা যেখানে আল্লাহ’র রহমত বেশি সেখানে : মোঃ শাওন মিয়া শনিবার মানিক মিয়া এভিনিউতে এফটিপিও”র  উদ্যোগে শিল্পী কলাকুশলীদের সম্প্রীতি সমাবেশ  আইভীর অনিয়ম দুর্নীতি দুদকে অভিযোগ,নারায়ণগঞ্জ জুড়ে তোলপাড় বিশ্ব মিডিয়ায় হিন্দু সম্পত্তি দখলদার আইভী ও তার পরিবার র‌্যাব-১১ এর অভিযানে ফতুল্লায় সংবাদ সংগ্রহকারী নারী সংবাদিককে মারধর ও হামলার মূলহোতা ‘হাজী ওসমান গণি’ গ্রেফতার নারায়ণগঞ্জ শহরে সংঘটিত চাঞ্চল্যকর “হকার জুবায়ের হোসেন’’ হত্যাকান্ডের প্রধান আসামী “ইকবাল” কে বরিশালের উজিরপুর থেকে র‌্যাব কর্তৃক গ্রেফতার

বন্দরে সরকার দলীয় রাজনীতিতে ফের আলোচনায় যুব সমাজের আইডল খান মাসুদ

টেলিগ্রাফ রিপোর্ট:
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ৪ মার্চ, ২০২১
  • ৬৩৫ বার

নারায়ণগঞ্জ জেলার বন্দরে সরকার দলীয় রাজনীতিতে খান মাসুদ বছর জুড়ে কোন না কোন বিষয়ে আলোচনায় থাকেন। নিজ ব্যক্তিস্বার্থের উর্দ্ধে দেশ, দল ও সংগঠনের প্রয়োজনে বছর জুড়েই পত্রিকায় শিরোনামে আসেন। বন্দর থানা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক খাঁন মাসুদ ও তার সহকর্মীরা। গঠনের প্রয়োজনে যে ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে তা বর্তমান ছাত্রলীগের নেতাদের তার একাংশও করতে দেখা মিলেনি। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে একুশের প্রথম প্রহরে বন্দর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শান্তিপূর্ণভাবে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন বন্দর উপজেলা প্রশাসন ও বন্দর থানা পুলিশসহ সরকার দলীয় নেতাকর্মীসহ বিভিন্ন সংগঠন। হঠাৎ সেখানে শ্রদ্ধা জানাতে আচমকা বিএনপির একটি উগ্র মিছিল শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা জ্ঞাপনের নামে নানা ধরনের উদ্ধৃত স্লোগানে হাততালি দিয়ে শহীদদের প্রতি অসম্মান করে উত্তপ্ত পরিবেশ সৃষ্টি করে। এমনকি তারা আনন্দ উল্ল্যাসও করতে থাকে।

 

অপর দিকে, ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা উপস্থিত থাকলে বিএনপির নেতাকর্মীরা দলীয় মিছিলে সরগরম করে আনন্দ উল্ল্যাসে কোন প্রতিবাদ করতে দেখা যায়নি। কিন্তু তাৎক্ষনিক নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ একেএম শামীম ওসমানের আস্থাভাজন জেলা যুবলীগ নেতা খান মাসুদের কর্মী সমর্থকরা বঙ্গবন্ধুর স্লোগান দিলে স্থান থেকে তাৎক্ষনিক তড়িঘড়ি করে বিএনপির নেতৃবৃন্দরা সটকে পরে। প্রায় ১ যুগ পর বিএনপির এমন জেগে উঠাকে ভাল দৃষ্টিতে দেখছে না রাজনৈতিক বৌদ্ধারা।

 

পরে শহিদ মিনার অবমাননা করার প্রতিবাদে খান মাসুদের পক্ষে বন্দর থানা যুবলীগ নেতা মো. মাসুম আহমেদ, ডালিম হায়দার ও লুৎফর রহমানের নেতৃত্বে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিল নিয়ে বন্দর বাজার হয়ে সিরাজুদ্দৌলা মাঠ সংলগ্ন ঘুরে বন্দর ১নং খেয়াঘাট এলাকায় এসে শেষ হয়। সে সময় বিএনপির কোন নেতা কর্মীদের মাঠে দেখা যায়নি। জেলা যুবলীগ নেতার পিতা সামছুদ্দিন খান অসুস্থ তারপরও বিদেশ হতে দেশে আসতে পারছে না। তার অনুপস্থিতিকে বৃন্দু পরিমান বুঝতে সুযোগ দেননি তার বিশস্ত ভযানগাটরা।

 

বিএনপির সেই উগ্র মিছিলটির নেতৃত্বে ছিলেন,বন্দর উপজেলা সাবেক চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মুকুল, সাবেক এমপি পুত্র আবুল কাউসার আশা,২২ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সুলতান আহমদ, ২১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর হান্নান সরকার।

 

নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক করে একাধিক ব্যাক্তিরা বলেন, শহিদ মিনার একটি পবিত্র স্থান, আর স্থানে বিএনপির নেতাকর্মীরা শ্রদ্ধা জানাতে এসে হাততালী সহ বিভিন্ন স্লোগান আনন্দ উল্ল্যাস করতে দেখা গেছে। পাশে আওয়ামীলীগের অনেক নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিল। তারা প্রতিবাদ না করে নিরব ভুমিকা পালন করতে দেখা গেছে। কিন্তু যুবলীগ নেতা খান মাসুদের কর্মী সমর্থকরা তাৎক্ষনিক প্রতিবাদ করতে দেখা গেছে।

 

তারা আরো বলেন, খান মাসুদের মতো ত্যাগী নেতা না থাকায় বিএনপি আজ সুযোগ নিল। তারপরও খান মাসুদের কর্মীরাই স্লোগান দিয়ে তাদের কাউন্টার দিল। রাজনীতির এমন দশা দেখে মনে হলো বন্দরে খান মাসুদ ছাড়া আর কেউ আওয়ামীলীগ করেনা।

 

খান মাসুদের পক্ষে মিছিল নিয়ে যোগদান

 

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে বন্দর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে একুশের প্রথম প্রহরে বিএনপি কর্তৃক শহীদ মিনার অবমাননার প্রতিবাদে প্রতিবাদ সভা ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। বন্দর উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে (২২ ফেব্রুয়ারি) সোমবার বিকেল ৩ টায় বন্দর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে এ প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

 

প্রতিবাদ সভা সফল করার লক্ষ্যে নারায়ণগঞ্জ জেলা যুবলীগ নেতা খান মাসুদের পক্ষে লুৎফর রহমান,মাসুম আহমেদ, ডালিম হায়দার, রাজু আহমেদ, আকিব হাসান রাজুর নেতৃত্বে একটি বিশাল মিছিল নিয়ে সভাস্থলে যোগদান করে।

 

নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক হুমায়ুন কবির মৃধা’র সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বন্দর উপজেলা আওয়ামীলীগের বিপ্লবী সভাপতি ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব এম এ রশিদ। প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বন্দর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক কাজিম উদ্দিন প্রধান।

 

বন্দর থানা ছাত্রলীগের সভাপতি নাজমুল হাসান আরিফের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, ১৯ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ফয়সাল আহমদ সাগর, ধামগড় ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মোঃ মাসুম আহমেদ, বন্দর উপজেলা সংরক্ষিত মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সালিমা হোসেন শান্তাসহ অন্যান্যো নেতৃবৃন্দ।

 

বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নিয়ে- খান মাসুদ

 

বন্দরে আওয়ামীলীগ, জাতীয় পার্টি করে তাদের চেয়ে বিএনপির লোকেরা অনেক ভাল অবস্থানে আছে। তারা কিন্তু ব্যবসা বানিজ্য করে ভাল অবস্থানে আছে টাকা পয়সা কামাইতাছে। তবে বন্দরে সব জায়গায়ই একই অবস্থানে আছে। বিএনপির লোক এখন আগের চেয়ে অনেক সক্রিয় হয়ে উঠেছে। হেফাজত আর জামাত তারা কিন্তু বিএনপির নির্দেশে এসব করতেছে।

 

মঙ্গলবার ৮ ডিসেম্বর বিকেলে বন্দরে শহিদ সোহরাওয়ার্দী ক্লাবে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য ভাঙার প্রতিবাদে উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যােগে প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠানে নারায়ণগঞ্জ জেলা যুবলীগ নেতা খান মাসুদ এসব কথা বলেন।

 

খান মাসুদ বলেন, বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যে হাত দিয়েছে মানে আমাদের কলিজার ভিতরে হাত দিছে। এবং মসজিদের ভিতরেসহ ইমাম সাহেবরা মুসল্লিদের শপথ করায় বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙার। কোথায় কি হলো দেখার বিষয় না আমাদের বন্দর কি হলো এটা দেখতে হবে সবার আগে। এছাড়াও বঙ্গবন্ধুকে ভেঙে ফেলছে আবার তারা হুংকার দেয় কোথাও ভাস্কর্য হতে দিবে না। আবার মসজিদে ইমাম সাহেবরা মুসল্লিদের শপথ করায়। যেসব এলাকায় মসজিদ কমিটি আছে ভেঙে নতুন করে করতে হবে। সেই সাথে ঐ সব ইমামদের চাকরি থেকে না করে দিতে হবে।

 

খান মাসুদ আরও বলেন, বন্দরে সর্বপ্রথম বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য হবে খান বাড়ির মোড়ে। সরকার এবং যদি সিটি কপোরেশন না করে তাহলে আমাদের টাকায় আমরা বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য করবো এবং করতে হবে। আমরা কারো আশায় থাকবো না। কারণ এখানে মৌলবাদীরা এবং বিএনপির লোকেরা অনেক শক্তিশালী হয়ে গেছে। তারা আমাদের চেয়েও অনেক ভাল আছে। সারা বাংলাদেশে বিএনপির কি অবস্থা আছে তা জানি না তবে বন্দরে তারা অনেক ভাল আছে। বন্দরে সেন্টাল ঘাট চালায় বিএনপির লোকেরা। বিএনপির প্রোগ্রামে গুলোতেও তাদের দেখা যায়। নদীর ওপার কি মহাজোটের কোন নেতাকর্মী নাই। এ বিষয়টি আপনাদের দেখতে হবে।

 

আরেকটি যুদ্ধ হবে- খান মাসুদ

 

নারায়ণগঞ্জ জেলা যুবলীগ নেতা খান মাসুদ বলেছেন, ১৯৭১ সালে দেশ স্বাধীন হলেও ২০২০ সালে এসেও আমরা স্বাধিনতার স্বাদ পাচ্ছি না। ৭১এর সেই পাকিস্তানি রাজাকারের বীজ এখনো বাংলার মাটিকে অপবিত্র করছে। জঙ্গিবাদী আর মৌলবাদীদের কত বড় দুঃসাহস হলে স্বাধিন বাংলার স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষ্কর্যে হাত দেয়। বঙ্গবন্ধুর অপমানে দেশের ১৮ কোটি জনগণের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হচ্ছে। মুক্তিযোদ্ধাদের হৃদয়কে চূর্ণবিচূর্ণ করেছে। সময় এসেছে, প্রতিরোধ নয় প্রতিশোধ নিতে হবে। আমি বলি যুদ্ধ শেষ হয় নি যুদ্ধ আরেকটা বাকি আছে। সেই যুদ্ধ হল মৌলবাদী,জঙ্গিবাদী আর পাকিস্তানি দালালদের বিরুদ্ধে।

 

প্রিয়নবীজি ধর্মনিয়ে বাড়াবাড়ি করতে নিষধ করেছেন। কিন্তু ধর্ম ব্যবসায়ীরা ধর্মের দোহাই দিয়ে ধর্ম নিরপেক্ষ শান্ত দেশকে অশান্ত করতে চাচ্ছে।

 

মাননীয় প্রধাণমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন তাদের সহ্য হচ্ছে না। ইনশাআল্লাহ যুবকদের সাথে নিয়ে এই ইসলামের শত্রু, দেশ ও জনগণের শত্রু, পাকিস্তানি প্রেতাত্মাদের অচিরেই বাংলার জমিন থেকে এই উৎখাত করে দেশকে কলংকমুক্ত করা হবে।

 

(৬ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় বন্দর জামাইপাড়া এলাকায় স্বপ্নচূড়া সমাজ কল্যাণ যুব সংগঠনের প্রথম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষা সামগ্রী বিতরণ, গুনিজন এবং সমাজে বিশেষ অবদান রাখার জন্য বিভিন্ন সংগঠনকে সম্মাননা ও আলোচনা সভার প্রধাণ অতিথি’র বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

 

এসময় তিনি আরো বলেন, আজকের যুবসমাজ ভবিষ্যৎ বাংলার হাল ধরবে। যুবকরা সংগঠিত থাকলে দেশের সকল অন্যায়-অত্যাচার রুখে দেয়া সম্ভব। আমি এই সংগঠন(স্বপ্নচূড়া)সহ সকল সামাজিক যুব সংগঠনের উত্তরোত্তর সাফল্য কামনা করি।

 

দেবোত্তর সম্পত্তি নিয়ে আইভীকে কঠোর হুশিয়ারি-খান মাসুদ

 

মেয়র আইভি ও তাঁর পরিবার কর্তৃক হিন্দু দেবোত্তর সম্পত্তি দখলের অপচেষ্টা ও হুমকি প্রদানের প্রতিবাদে প্রতীকী অনশন কর্মসূচীতে সংহতি প্রকাশ করে মঞ্চে বক্তব্য প্রদানকালে যুবলীগ নেতা খান মাসুদ বলেন, আজকে যারা দলের সাইনবোর্ড লাগিয়ে দেবোত্তর সম্পত্তি দখল করে সরকারে বদনাম করতে চায় আমরা বঙ্গবন্ধু’র আদর্শের সৈনকরা তা কখনো হতে দেবনা। দেবোত্তর সম্পত্তি ফিরিয়ে পেতে আজকের পর জেন আর কোন আন্দোলন করতে না হয়। আমি চাই হিন্দু দেবোত্তর সম্পত্তি যেন তাদেরকে ফিরিয়ে দেয়া হয়।

 

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর শাখা এবং বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খৃষ্টান ঐক্য পরিষদ নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর শাখা কমিটির উদ্যোগে বুধবার (২ ডিসেম্বর) বিকেল ৩ টায় চাষাঢ়া শহীদ মিনারে আয়োজিত প্রতীকী অনশন কর্মসূচীতে তিনি এসব কথা বলেন।

 

ধর্মব্যবসায়ীদের কঠোর জবাব-খান মাসুদ

 

বন্দরে পবিত্র ফাতেহা-ই দোয়াজদহম উপলক্ষে সেলসারদি গাউছিয়া দরবার ওয়াকফ স্টেটে ২দিন ব্যাপী উরশে গাউসুল আজম অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতভর স্বাস্থ্য বিধি মোতাবেক ওয়াজ ও দোয়া মাহফিলের মাধ্যমের এর আনুষ্ঠানিকতা শেষ হয়। দোয়ায় প্রধাণ অতিথি বন্দর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব কাজিম উদ্দিন প্রধাণের অসুস্থতাজনিত কারণে তার প্রতিনিধি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কলাগাছিয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আক্তার হোসেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ জেলা যুবলীগ নেতা খাঁন মাসুদ।

 

এসময় খান মাসুদ বলেন, যারা ধর্ম নিয়ে ব্যবসা করে তাদের থেকে দূরে থাকতে হবে। এদেশ ৩৬০ আউলিয়ার দেশ আমরা সেটা বিশ্বাস করি। যারা মাজার পূজার কথা বলে পীর আউলিয়াদের দূর্নাম করে তারা আর কেউ নয় ইসলামের শত্রু।

 

কিছু ইসলামি লেবাসদারী মৌলবাদী সরকারের উন্নয়নের অগ্রযাত্রাকে রুখে দিতে মানুষের মাঝে বিভ্রান্তি ছড়াতে চায়। তারা আমাদের দেশকে আফগানিস্তান বানাতে চায়। তাদের জেনে নেয়া উচিৎ বাংলার সুন্নি-জনতা সর্বদা একত্রিত আছে। ধর্ম নিয়ে যারা রাজনৈতিক ফায়দা লুটতে চায় তাদের স্বপ্ন কখোনো পূরন হবে না৷

যুবলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে খান মাসুদের চমক

বন্দরে উৎসবমুখর পরিবেশ ও নানা আয়োজনে’র মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের ৪৮তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালণ করেছে নারায়ণগঞ্জ জেলা যুবলীগ নেতা খাঁন মাসুদ। দল ক্ষমতায় থাকলেও ১যুগেও বন্দরের সংগঠনের শীর্ষ নেতাদের যা করতে দেখা যায়নি তা করে প্রমান করেছেন খান মাসুদ। গত (১১ নভেম্বর) সকাল ১১টায় বন্দর থানাধীন খাঁন বাড়ি মোড় হতে শান্তি’র প্রতিক পায়রা ও রং বেরংয়ের বেলুন উড়িয়ে বন্দরের সসকল শীর্ষ নেতাদের একত্রে করে বিশাল রর্যালী করেন। এ কর্মসূচি’র আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি বন্দর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান তথা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব এম এ রশিদ।

 

উদ্বোধন শেষে আগত নেতাকর্মীরা প্রথমে আলোচনা সভা পরে বর্ণাঢ্য র‍্যালীতে মিলিত হয়। র‍্যালীটি খাঁনবাড়ি মোড় হতে বন্দর বাজার হয়ে ১নং খেয়াঘাট এলাকায় এসে শেষ হয়।

 

এসময় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এম রশিদ বলেন, বাংলাদেশ সৃষ্টি’র পর ১৯৭২সালে’র এইদিন যুব সমাজকে সঙ্গে নিয়ে সোনার বাংলা গড়ার লক্ষে বঙ্গবন্ধুর আদর্শে ও অনুপ্রেরণায় শেখ ফজলুল হক মনি’র নেতৃত্বে যুবলীগ গঠিত হয়। প্রতিষ্ঠার পর থেকেই আর পিছু ফিরে তাকাতে হয়নি দেশের যুবসমাজের। মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে সঙ্গে নিয়ে যুবলীগ তাদের লক্ষ্যমাত্রায় ধাপে ধাপে এগুতে থাকে। কিন্তু মোশতাক বাহিনীর তা সহ্য হয়নি। ঐ কুচক্রী’রা স্বপরিবারে বঙ্গবন্ধুকে ও জাতীয় চার নেতাকে হত্যা’র পর দেশের যুবসমাজের মধ্যে কোন্দল পাকিয়ে দেন। কিন্তু তাতেও যুবলীগ ভেঙ্গে যায়নি তারা । মানুষকে স্বাধিনতার পূর্ণাঙ্গ স্বাদ দিতে বিভিন্ন সময়ে তারা জেল-জুলুম উপেক্ষা করে রাজপথে লড়াই করে আন্দোলন সংগ্রামে’র মাধ্যমে দেশে শান্তি প্রতিষ্ঠা করেছে।

 

তিনি আরো বলেন, আশি’র দশকে যেমন আমি নিজেও বন্দর যুবলীগের সভাপতি ছিলাম। তখন আমরা বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামে অংশ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী’র হাতকে শক্তিশালী করেছিলাম। যুবসমাজকে স্বাধিনতা’র স্বাদ দিয়েছিলাম। তেমনিভাবে আপনাদেরই ভাই খান মাসুদ যুবসমাজের পাশে থেকে মানুষের অধিকার রক্ষার প্রচেষ্ঠা করে যাচ্ছেন।

 

যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে খাঁন মাসুদের উদ্যোগে আয়োজিত বর্ণাঢ্য র‍্যালীর ভূয়সী প্রশংসা করে বক্তব্য রাখেন, বন্দর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজিম উদ্দিন প্রধান, মহানগর আওয়ামীলীগের যুব ও ক্রীয়া বিষয়ক সম্পাদক হুমায়ূণ কবির মৃধা, বন্দর উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সালিমা হোসেন শান্তা, মদনপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব এম এ সালাম।

 

এছাড়াও র‍্যালীতে অংশগ্রহণ করেন, ধামগড় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মাসুম আহমেদ, সাবেক ২৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও থানা আওয়ামীলীগ নেতা আনোয়ার হোসেন আনু, আ’লীগ নেতা মোঃ কাইয়ুম, শহিদুল ইসলাম মৃধা, বন্দর থানা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি নাজমুল হাসান আরিফ, মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হাসনাত রহমান বিন্দু,কলাগাছিয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহিম কাশেম, বন্দর থানা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মুজাহিদ ইসলাম বিপ্লব, বন্দর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মোঃ ফয়সাল কবির, নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি আরাফাত রহমান জুম্মান, বন্দর আমিন আবাসিক এলাকা পঞ্চায়েত কমিটির সাধারণ সম্পাদক লুৎফর রহমান,বন্দর থানা যুবলীগ নেতা মাসুম আহমেদ, ডালিম হায়দার,শেখ মমিন,মোহাম্মদ হোসেন, কলাগাছিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সোহেব মোঃ লিটন, বন্দর ইউনিয়ন ১ নং ওয়ার্ড মেম্বার সাব্বির আহমেদ ইমন, বন্দর থানা মহিলা আওমীলীগ নেত্রী সোনিয়া বেগম, নূর ইসলাম, বাবু মোল্লা, আজিজুল হক আজিজ,রয়েল, কলাগাছিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সোহেব মোহাম্মদ লিটন, নূরবাগ যুব সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক রাজু আহমেদ, যুবলীগ নেতা আকিব হাসান রাজু ও রাজিব সিকদার সায়মন খানসহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ। যুবলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রবীন আওয়ামীলীগ নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা এম এ রশিদ অকপটে বলেন, আমার মনে হচ্ছে ৮০ দশকের যুবলীগ আজ খাঁন মাসুদের মাধ্যমে দেখতে পেলাম। এছাড়া করোনা মহামারিতে অসহায়,দুস্থ পরিবারের মাঝে নিজে যে ভূমিকা পালন করেছেন তাঁর জন্য প্রশংশিত হয়েছেন এবং পেয়েছেন সম্মাননা ক্রেষ্ট।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2020 Telegraphnews24.com
Theme Dwonload From telegraphnews24.Com