1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : test2246679 :
  3. [email protected] : test25777112 :
  4. [email protected] : test29576900 :
  5. [email protected] : test34936489 :
  6. [email protected] : test44134420 :
  7. [email protected] : test46751630 :
  8. [email protected] : test8373381 :
বুধবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:৩৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
নারায়ণগঞ্জ সদরে শারীরিক প্রতিবন্ধী আসমা পেল পিঠা তৈরী-বিক্রির সকল উপকরণ  নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন পালন চাষাড়া বোমা হামলায় শহীদদের অসম্মান করেছেন আইভী: কামরুল হাসান মুন্না আইভী প্রমান করুক সাগর-রুনি, তনু হত্যাকারী কে ? : খোকন সাহার চ্যালেঞ্জ প্রধানমন্ত্রীর ৭৫তম জন্ম‌দিনে রে‌জি‌স্ট্রেশন কমপ্লেক্স, নারায়ণগ‌ঞ্জের উ‌দ্যো‌গে দোয়া ও কেক কাটা অনু‌ষ্ঠিত প্রধানমন্ত্রীর ৭৫ তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে জাতীয় শ্রমিকলীগ ফতুল্লা আঞ্চলিক শাখার উদ্যোগে আলোচনা ও দোয়া অনুষ্ঠিত  যুবলীগ নেতা খান মাসুদের উদ্যোগে প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন পালণ প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে ২০০ পাউন্ডের কেক কাটলেন সেলিম ওসমান এমপি প্রধানমন্ত্রীর ৭৫ তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আওয়ামী মৎস্যজীবি লীগ ফতুল্লা থানা শাখার উদ্যোগে আলোচনা ও দোয়া অনুষ্ঠিত  প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ৭৫ তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে ফতুল্লা থানা আওয়ামী মটর শ্রমিকলীগের উদ্যোগে আলোচনা সভা ও দোয়া

মহামারী সংকট মোকাবেলায় জরুরী সহযোগিতা ও অংশীদারিত্ব প্রয়োজন: রাবাব ফাতিমা

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ৩০ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৫৬ বার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাবাব ফাতিমা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে একটি দক্ষ, কার্যকর এবং সমন্বিত উপায়ে কোভিড-১৯ এর ফলাফল মোকাবেলা করতে একত্রিত হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

শুক্রবার জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসের বার্ষিক প্রতিবেদন এবং ২০২১ সালের অগ্রাধিকার নিয়ে কথা বলার সময় তিনি এ কথা বলেন।

রাষ্ট্রদূত ফাতিমা তার নেতৃত্বের জন্য মহাসচিবকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন, যদিও মহামারী তার কাজের উপর বিশাল চ্যালেঞ্জ আরোপ করেছে।
রাষ্ট্রদূত ফাতিমা তার বক্তব্যে বাংলাদেশের জাতীয় অগ্রাধিকারের কথা উল্লেখ করেছেন, যেমন কোভিড-১৯ টীকা, জলবায়ু জরুরী অবস্থা, এলডিসি স্ট্যাটাস থেকে স্নাতক, ২০৩০ সালের এজেন্ডা বাস্তবায়ন, ডিজিটাল প্রযুক্তি, শান্তিরক্ষা এবং রোহিঙ্গা ইস্যুকে কাজে লাগানো।

বিশ্ব সম্প্রদায় এই সংকট থেকে ফিরে আসার প্রচেষ্টা হিসেবে অংশীদারিত্ব এবং সংহতি গড়ে তোলার প্রয়োজনীয়তা এবং গুরুত্ব নিয়ে কথা বলার সময় রাষ্ট্রদূত ফাতিমা জোর দিয়ে বলেন যে কার্যকর কোভিড-১৯ সাড়া এবং পুনরুদ্ধারের জন্য, টিকা সবার জন্য অগ্রাধিকারের বিষয় হিসেবে উপলব্ধ করতে হবে।

তিনি জোর দিয়ে বলেছেন যে আসন্ন ‘টীকা বিভাজন’ দূর করতে, জাতিসংঘের উচিত এই টিকায় ন্যায্য, নিরাপদ এবং সাশ্রয়ী মূল্যের বৈশ্বিক প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করা।

রাষ্ট্রদূত ফাতিমা আরো বলেন যে কোভিড-১৯ টিকার ন্যায্য বিতরণ একই জরুরী এবং সম্পদের সাথে মিলে যাবে যা কোভিড-১৯ টিকার উন্নয়ন এবং রোল-আউট চিহ্নিত করেছে।

এলডিসি মর্যাদা থেকে বাংলাদেশের আসন্ন স্নাতকের কথা উল্লেখ করে রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা বলেন, স্নাতক ও স্নাতক দেশগুলোর জন্য সময়োপযোগী সহায়তা ব্যবস্থা সহ এলডিসির জন্য একটি প্রণোদনা ভিত্তিক স্নাতক পথকে সমর্থন করা অত্যন্ত জরুরী।

যদি তা না হয়, তাহলে তিনি সতর্ক করে দিয়েছেন, কোভিড-১৯ এর ফলাফলের সাথে বিদ্যমান দুর্বলতা এই দেশগুলোর কঠিন অর্জিত উন্নয়ন লাভকে বিঘ্নিত করবে।
কার্বন নিরপেক্ষতা না পৌঁছানো পর্যন্ত বিশ্বের নেতাদের জলবায়ু জরুরী অবস্থা ঘোষণা করার আহ্বান জানিয়ে মহাসচিবের প্রশংসা করে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত বৈঠকে বলেন, বাংলাদেশের সংসদ “প্ল্যানেটারি ইমার্জেন্সি” ঘোষণা করেছে এবং জলবায়ু পরিবর্তন বন্ধে বিশ্বকে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছে।

রাষ্ট্রদূত ফাতিমা আরো বলেন, ৪৮ সদস্যবিশিষ্ট জলবায়ু অসুরক্ষিত ফোরামের (সিভিএফ) বর্তমান চেয়ারম্যান হিসেবে বাংলাদেশ সকল জলবায়ু আলোচনায় এলডিসি এবং সিডসের মতো অসহায় দলগুলোর প্রতি বিশেষ মনোযোগ প্রদানের গুরুত্ব তুলে ধরেছে।

এ বছরের নভেম্বর মাসে অনুষ্ঠিত সিওপি-২৬-এর কথা উল্লেখ করে তিনি আশা প্রকাশ করেন যে গ্লাসগোর বৈঠকে জাতিসংঘ মহাসচিব এবং জলবায়ু আর্থিক প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী উচ্চাভিলাষী নতুন জলবায়ু লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করা হবে।

রাষ্ট্রদূত ফাতিমা তার ভাষণে জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা, শান্তি রক্ষা এবং শান্তি এজেন্ডা বজায় রাখার প্রতি বাংলাদেশের অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেন, যার মধ্যে রয়েছে নারী ও তরুণদের প্রতি আরো জোরালো মনোযোগ।

তিনি উল্লেখ করেন যে কোভিড-১৯ চ্যালেঞ্জ সত্ত্বেও বাংলাদেশী শান্তিরক্ষী এবং অন্যান্য প্রথম সারির কর্মীরা বিশ্বব্যাপী জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা প্রচেষ্টাকে সমর্থন করে যাচ্ছে।

এই প্রসঙ্গে, তিনি উল্লেখ করেছেন যে ভবিষ্যতে মহামারী বা অন্যান্য জরুরী পরিস্থিতিতে শান্তিরক্ষীদের নিরাপত্তা এবং নিরাপত্তা নিশ্চিত করা উচিত শান্তিরক্ষা আদেশে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি গ্রহণ ের মাধ্যমে।

এই বৈঠকের সুযোগ নিয়ে রাষ্ট্রদূত ফাতিমা স্মরণ করিয়ে দেন যে বাংলাদেশ এখনো ১১ লক্ষ রোহিঙ্গার আয়োজন করছে এবং দীর্ঘ সংকট সমাধানে আরো নির্ণায়ক পদক্ষেপ ের প্রয়োজন হবে।

তিনি জাতিসংঘ মহাসচিবের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন এই জটিল পরিস্থিতির প্রতি আরো মনোযোগ আকর্ষণ করার জন্য, যা তাড়াতাড়ি সমাধান না করা হলে এই অঞ্চলে আরো অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি হতে পারে।

মহাসচিবের প্রতি বছরের শুরুতে সদস্য রাষ্ট্রগুলিকে একটি অনানুষ্ঠানিক ব্রিফিংয়ের মাধ্যমে তার অগ্রাধিকার তুলে ধরা রেওয়াজ।

জাতিসংঘের জন্য এ বছরের অগ্রাধিকারগুলো হচ্ছে: কোভিড-১৯ টিকার ন্যায্য এবং সমান বিতরণ এবং স্বাস্থ্য ব্যবস্থা, সমন্বিত ও টেকসই অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার, জলবায়ু ও জীববৈচিত্র্য, দারিদ্র্য ও বৈষম্য, মানবাধিকার, লিঙ্গ সমতা মোকাবেলা, শান্তি ও নিরাপত্তা, পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণ, জাতিসংঘের ১৯৩টি সদস্য রাষ্ট্রের স্থায়ী প্রতিনিধি এবং প্রতিনিধিরা এই ব্রিফিংয়ে উপস্থিত ছিলেন।

জাতিসংঘের ১৯৩টি সদস্য রাষ্ট্রের স্থায়ী প্রতিনিধি এবং প্রতিনিধিরা এই ব্রিফিংয়ে উপস্থিত ছিলেন।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2020 Telegraphnews24.com
Theme Dwonload From telegraphnews24.Com