1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : test2246679 :
  3. [email protected] : test25777112 :
  4. [email protected] : test29576900 :
  5. [email protected] : test34936489 :
  6. [email protected] : test44134420 :
  7. [email protected] : test46751630 :
  8. [email protected] : test8373381 :
শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২:৩০ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
আইভী ব্যর্থ,নগরবাসীর কাছে প্রমানিত: এড. শাখাওয়াত হোসেন খান কবি কন্ঠে কবিতা পাঠ ও রুপান্তর রৌদ্রছায়া সাহিত্য সম্মাননা ২০২১ অনুষ্ঠিত আলীরটেকে মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে ফাইনাল খেলায় প্রধান অতিথি চেয়ারম্যান প্রার্থী সায়েম আহম্মেদ বাহাউদ্দিন নাসিমের মা’র রুহের মাগফেরাত কামনায় কাউন্সিলর দুলাল প্রধানের মিলাদ ও দোয়া আমি এমন কাজ করে যেতে চাই যেনো মৃত্যুর পরেও লোকে বলে একজন ভালো মানুষ ছিলেন : ২২নং ওয়ার্ডে তরুণ কাউন্সিলর প্রার্থী খান মাসুদ দুর্নীতিমুক্ত রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায় নৈতিকতাসম্পন্ন ছাত্র সমাজের বিকল্প নেই : ফতুল্লা ইশা ছাত্র আন্দোলন র‌্যাব-১১ এর পৃথক অভিযানে রূপগঞ্জ হতে ১ মাদক ব্যবসায়ী এবং ডাকাতি মামলার ১ পলাতক আসামী গ্রেফতার সিদ্ধিরগঞ্জের ৫নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের কর্মী সভা অনুষ্ঠিত নাসিক ২২নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে খান মাসুদকে কোর্টপাড়া পঞ্চায়েত কমিটির পূর্ণ সমর্থন এবার বঙ্গবন্ধুর ভুল শুধরানোর ভূমিকায় মেয়র আইভী!

ডিবি পরিচয়ে ডাকাতির জের, আড়াইহাজার থানার এ এস আই মাসুম শেখ শ্রীঘরে

নারায়ণগঞ্জ (আড়াইহাজার) প্রতিনিধি:
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৯ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ১০৪ বার

গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) পরিচয়ে সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) পদমর্যাদার নারায়ণগঞ্জের এক পুলিশ সদস্যের নেতৃত্বে সংঘবদ্ধ অপরাধী চক্রের সদস্যরা ডাকাতিসহ নানা অপরাধমূলক কর্মকা- করেআসছিলেন। ডাকাতির কাজে সরকারি পিস্তল, হ্যান্ডকাফ, গাড়িও ব্যবহার করতেন। ডিবি পরিচয়ে ডাকাতির মাধ্যমে সাড়ে ৯ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে সম্প্রতি ওই পুলিশ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে।
ওই এএসআই হলেন আড়াইহাজার থানার মাসুম শেখ (৩৩)। মাসুমের গ্রামের বাড়ি গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরে। সে এখন কারাগারে। যদিও ডাকাতির কথা অস্বীকার করে আড়াইহাজার থানা পুলিশের পরিদর্শক (তদন্ত) শওকত হোসেন বলেন, মাসুম শেখ সপ্তাহ খানিক আগে ছুটিতে রয়েছে। মামলার নথিপত্রের তথ্য বলছে, আবদুল আওয়াল নামের এক ব্যক্তি রামপুরার একটি মাদ্রাসায় শিক্ষকতা করেন।

গত ৮ সেপ্টেম্বর তিনি রামপুরার টিভি সেন্টারের সামনে দাঁড়িয়ে ছিলেন। তখন কথিত বাবু নামের এক ব্যক্তি মাদ্রাসাশিক্ষক আওয়ালের কাছে এসে বলেন, পেশায় তিনি রিকশাচালক। তিনি লেখাপড়া জানেন না। ১০০ রিয়াল ভাঙানোর জন্য তিনি সাহায্য চান। কথোপকথনের একপর্যায়ে আওয়াল ওই ব্যক্তির কাছে জানতে চান, রিয়াল কোথায় পেয়েছেন? জবাবে বাবু জানান, তাঁর পরিচিত একজন পরিচ্ছন্নতাকর্মী ওই রিয়াল রাস্তায় কুড়িয়ে পেয়েছেন। কথিত রিকশাচালক বাবুর কথায় বিশ্বাস করে রিয়াল ভাঙিয়ে দেন আওয়াল। পরে কথিত পরিচ্ছন্নতাকর্মী হায়দারকে আওয়ালের কাছে হাজির করেন বাবু। মোট ১ হাজার ৮৬০ রিয়াল ভাঙানোর জন্য মাদ্রাসাশিক্ষক আওয়ালকে অনুরোধ করেন কথিত পরিচ্ছন্নতাকর্মী হায়দার। রিয়ালগুলো ভাঙিয়ে দিলে অর্ধেক টাকা আওয়ালকে দেওয়ার প্রস্তাব দেন বাবু ও হায়দার। তাঁদের রিয়ালগুলো বুঝিয়ে নেওয়ার জন্য আওয়ালকে রামপুরার লেহাজ হোটেলের সামনে আসতে বলেন বাবু ও হায়দার। প্রলোভনে পড়া মাদ্রাসা শিক্ষক আওয়াল রিয়ালগুলো নেওয়ার জন্য নিজের ব্যাংক হিসাব থেকে পাঁচ লাখ টাকা তুলে আসেন লোহাজ হোটেলের সামনে। আওয়াল পাঁচ লাখ টাকা বাবু ও হায়দারকে বুঝিয়ে দেন। তখন বাবু ও হায়দার আওয়ালের হাতে প্যাকেটভর্তি কথিত রিয়াল তুলে দেন। তখন সেখানে একটি প্রাইভেট কার এসে থামে। প্রাইভেট কার থেকে নেমে তিনজন ব্যক্তি আওয়ালের কাছে আসেন এবং নিজেদের ডিবি পুলিশের পরিচয় দেন। আওয়ালকে জোর করে প্রাইভেট কারে তুলে হ্যান্ডকাফ পরান কথিত ডিবি পুলিশের সদস্যরা। রিয়ালগুলো কার কাছ থেকে সংগ্রহ করেছেন, কাগজপত্র কোথায় ইত্যাদি নানা কথা জানতে চায় ডিবি পরিচয় দেওয়া তিন ব্যক্তি। আওয়ালকে মামলা দিয়ে জেলে পাঠানোর কথা জানান তাঁরা। আওয়ালকে অবৈধ ব্যবসায়ী হিসেবে গণমাধ্যমের সামনে তুলে ধরার হুমকি দেওয়া হয়। তবে ১০ লাখ টাকা দিলে তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হবে বলেও জানানো হয়। তাঁর ব্যাংক হিসাবে যত টাকা আছে, তা দেবেন বলে জানান আওয়াল। আওয়ালের ব্যাংক হিসাব থেকে আরও সাড়ে তিন লাখ টাকা তুলে নেয় কথিত ডিবি পুলিশের দল।

ঢাকা মহানগর ডিবির লালবাগ বিভাগের তদন্তে উঠে আসে, মাদ্রাসাশিক্ষক আওয়ালের কাছে প্রথমে যিনি রিকশাচালকের পরিচয় দিয়ে রিয়াল ভাঙানোর ফাঁদ পেতেছিলেন, আসলে তিনি সংঘবদ্ধ অপরাধী চক্রের সদস্য।
তাঁর প্রকৃত নাম আনিছুর রহমান। আর হায়দার পরিচয় দেওয়া কথিত পরিচ্ছনতাকর্মী হলেন প্রতারক চক্রেরআরেক সদস্য শওকত। ডিবি পুলিশের পরিচয় দিয়ে আওয়ালের কাছ থেকে যাঁরা টাকা হাতিয়ে নিয়েছিলেন, তাঁরা ডিবি সদস্য নন। প্রকৃতপক্ষে পুলিশ সদস্য মাসুম শেখ আওয়ালের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নেন।
ডাকাতির ঘটনায় ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ(ডিবি) মামলার তদন্ত তদারক কর্মকর্তা ডিবির লালবাগ বিভাগের সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) ফজলুর রহমান বলেন, এএসআই মাসুম শেখ দীর্ঘদিন ধরে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে ডাকাতি, ছিনতাইসহ নানা অপরাধমূলক কর্মকান্ড করে আসছিলেন। তাঁদের নেতৃত্বে সংঘবদ্ধ একটি অপরাধীচক্র ঢাকায় ডিবি পুলিশ পরিচয় দিয়ে অপরাধ করে আসছিল। অপরাধমূলক কর্মকান্ডে জড়িত থাকার প্রমাণপত্র হাতে পাওয়ার পর শহীদ ও মাসুমকে গ্রেফতার করা হয়েছে। জব্দ করা হয়েছে ডাকাতির কাজে ব্যবহার করা পিস্তল, হ্যান্ডকাফ ও একটি প্রাইভেট কার। ডিবি পুলিশের পরিচয়ে এই অপরাধী চক্রের সদস্যরা এমনভাবে ডাকাতি করত যে ভুক্তভোগীদের বোঝার উপায় থাকত না, তাঁরা আসলে ভুয়া ডিবি। কারণ, পিস্তল, হ্যান্ডকাফ সবই পুলিশের।
আড়াইহাজার থানা পুলিশ একটি সূত্র জানিয়েছে, উচিৎপুরা ইউপিতে বিট নং-১০ দায়িত্ব পালন করতেন এএসআই মাসুম শেখ। সে সম্প্রতি ডাকাতির মামলায় গ্রেফতার হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2020 Telegraphnews24.com
Theme Dwonload From telegraphnews24.Com