1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : annagilliam :
  3. [email protected] : antonioligon :
  4. [email protected] : dexterarnott :
  5. [email protected] : kaseyhartwell1 :
  6. [email protected] : pimgiuseppe :
  7. [email protected] : test114192 :
  8. [email protected] : test15530113 :
  9. [email protected] : test18644919 :
  10. [email protected] : test2246679 :
  11. [email protected] : test25777112 :
  12. [email protected] : test27772429 :
  13. [email protected] : test28072043 :
  14. [email protected] : test29576900 :
  15. [email protected] : test34936489 :
  16. [email protected] : test35340289 :
  17. [email protected] : test37141039 :
  18. [email protected] : test3734843 :
  19. [email protected] : test41175725 :
  20. [email protected] : test43179736 :
  21. [email protected] : test44134420 :
  22. [email protected] : test45570592 :
  23. [email protected] : test46751630 :
  24. [email protected] : test8373381 :
  25. [email protected] : wpuser_lfudhofinnhh :
সোমবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২২, ১০:১৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সকল থানা-ওয়ার্ড কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা নৌকা হারবে না : শামীম ওসমান হ্যাটট্রিক জয় আইভীর বেসরকারি ভাবে বিজয়ী কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলরদের নাম ঘোষণা নাসিক ২৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর জনপ্রিয় প্রার্থী আলহাজ মোহাম্মদ খোকন এর নজরকাড়া বিশাল শোডাউন ২৩নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী (লাটিম মার্কা) সাইফুদ্দিন আহমেদ দুলাল প্রধানের বিশাল মিছিল ঘুড়ি মার্কায় ভোট চেয়ে ১৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী রিয়াদ হাসানের বিশাল শোডাউন ভালোবেসে ভোট দিয়ে সেবা করার সুযোগ দিন: ২৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী (লাটিম মার্কা) দুলাল প্রধান কাউন্সিলর প্রার্থী মুন্নার পক্ষে একাট্টা ১৮নং ওয়ার্ডবাসী ১৬নং ওয়ার্ডের ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রে বিশেষ নিরাপত্তা বাহিনী মোতায়েনের আহবান কাউন্সিলর প্রার্থী মোঃ রিয়াদ হাসানের

মেয়র আইভী সমর্থক কর্তৃক আওয়ামী লীগ নেতা নিয়াজুল ইসলাম খানকে হত্যাচেষ্টা ঘটনায়, নারায়ণগঞ্জে ১৭ জনের নামে মামলা

টেলিগ্রাফ রিপোর্ট:
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ২১ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ১৩৯ বার

হকার ও মেয়র আইভীর সমর্থকদের সংঘর্ষ চলাকালে আওয়ামী লীগ নেতা নিয়াজুল ইসলাম খানকে হত্যাচেষ্টা ও নির্মম মারধরের ঘটনায় অবশেষে মামলা হয়েছে। মারধরের শিকার হয়ে নিশ্চিত মৃত্যুর হাত থেকে ফিরে আসা আহত আওয়ামী লীগ নেতা নিয়াজুল ইসলাম খান প্রায় ২ বছর পর আদালতের দ্বারস্ত হন ন্যায় বিচারের প্রত্যাশায়। তার অভিযোগটি আমলে নিয়ে সদর থানার অফিসার ইনচার্জকে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়ার আদেশ দিয়েছেন বিজ্ঞ আদালত।

সোমবার (২১ ডিসেম্বর) বিকালে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ফাহমিদা খাতুনের আদালত এ নির্দেশ দেন। মামলা নং ২০/১২/২০। একই সাথে আগামী ২০২১ সালের ২২ মার্চ মামলাটির পরবর্তী তারিখ ধার্য করা হয়েছে। রবিবার (২০ ডিসেম্বর) অভিযোগটি আদালতে জমা দিয়েছিলেন আওয়ামী লীগ নেতা নিয়াজুল ইসলাম খান। মামলার সত্যতা নিশ্চিত করেন নারায়ণগঞ্জ আদালত পুলিশের পরিদর্শক মো. আসাদুজ্জামান। মামলায় ১৭জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে, আসামীদের অনেকেই বিএনপি-জামাত এর রাজনীতির সাথে যুক্ত। কেউ কেউ সরকার বিরোধী হিসেবে পরিচিত বলে জানায় বাদি পক্ষ।

অভিযুক্ত ব্যক্তিরা হলেন, মেয়র আইভীর ঘনিষ্টজন হিসেবে পরিচিত টোকাই থেকে রাতারাতি কোটিপতি হওয়া বিতর্কিত ঠিকাদার আবু সুফিয়ান, বাম নেতা অসিত বরণ বিশ্বাস, যুবদল নেতা মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ, কবির হোসাইন, বিএনপি নেতা হান্নান সরকার, আলী রেজা উজ্জল, মিনহাজুল কাদির মিমন, জাহাঙ্গীর আলম, ঠিকাদার কামরুল হুদা বাবু ওরফে চিত্তরঞ্জনের বাবু, বিএনপি নেতা সরকার আলম, হাজী নেওয়াজ, সৈকত মেম্বার, মোতালেব, ফারুক, লিপু, আমিনুল ইসলাম, মাসুম।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের ১৬ জানুয়ারী শহরে হকারদের সঙ্গে মেয়র আইভী সমর্থকদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সেদিন নারায়ণগঞ্জ ক্লাবে যাওয়ার পথে শহরের সায়েম প্লাজার সামনে ব্যবসায়ী ও আওয়ামী লীগ নেতা নিয়াজুল ইসলামের উপর হামলা করে অভিযুক্ত আসামীরা। এ ঘটনায় খোয়া যায় নিয়াজুলের লাইসেন্স করা অস্ত্র। পরে সেটা উদ্ধারও হয় পরিত্যাক্ত অবস্থায়। ওই ঘটনার পরদিন ১৭ জানুয়ারি ১৭ জনের নাম উল্লেখ করে থানায় অস্ত্র ছিনতাই ও হত্যাচেষ্টার লিখিত অভিযোগ দিয়েছিলেন নিয়াজুল ইসলাম। তবে, পুলিশ তখন অভিযোগ হিসেবে গ্রহণ না করে জিডি হিসেবে লিপিবদ্ধ করেছিলো।

ওই ঘটনার ২ বছর পর ২০ ডিসেম্বর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ফাহমিদা খাতুনের আদালতে জমা দেয়া আর্জিতে উল্লেখ করা হয়, মারাত্মক অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে বে আইনী সমাবেশের সদস্যরা ব্যবসায়ী নিয়াজুল ইসলাম খানকে ইচ্ছাকৃতভাবে মারধর করে ২ লাখ টাকা ও ১ ভরি ওজনের স্বর্ণের চেইন লুট করা হয়। এ ঘটনায় ১৪৩, ১৪৪, ১৪৯, ৩২৩, ৩২৬, ০০৭ ও ৪৩ ধারায় অভিযোগ করা হয়েছে।

বাদি পক্ষের সূত্রে জানা যায়,আওয়ামী লীগ নেতা নিয়াজুল ইসলাম খান বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক। এরশাদ বিরোধী আন্দোলনে নারায়ণগঞ্জে ঐ সময় যেসকল যুব নেতার নাম ছড়িয়ে পরেছিল তার মধ্যে একজন ছিলেন তিনি। আওয়ামী লীগের রাজনীতির ত্যাগী এক নেতা। জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের এক সময়কার সদস্য সচিবও ছিলেন তিনি। বার বার বিএনপি-জামাতের টার্গেটের শিকার তিনি। ১৯৯৫ সালে বিএনপির দুর্ধষ সন্ত্রাসী ডেভিডের মাধ্যমে হত্যার উদ্দেশ্যে নিয়াজুলের উপর হামলা করা হয়, গুলি করে মুমূর্ষ অবস্থায় মৃত ভেবে ফেলে রেখে যায়। ভাগ্যগুনে দ্রুত চিকিৎসায় মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে বেঁচে ফিরেন সে যাত্রায়। বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে এই নিয়াজুল ইসলামের ভাই যুবলীগ নেতা নজরুল ইসলাম ওরফে সুইটকে জেলখানা থেকে বের করে ক্রসফায়ারে হত্যা করা হয়। আর সেই নিয়াজুলকেই হত্যার উদ্দেশ্যে মেয়র আইভী এবং তার পরিবেষ্টিত বিএনপি লোকেরা সেদিন (২০১৮ সালের ১৬ জানুয়ারী) হত্যার ষড়যন্ত্র করে, তার উপর হামলা চালায়। আজকের মামলার আসামীরা হলো বিএনপির এবং আওয়ামী লীগ সরকার বিরোধী, স্বাধীনতাবিরোধী; যারা সর্বক্ষণ মেয়র আইভীর পরিবেষ্টিত থাকে। তাদেরকেই মামলায় আসামী করা হয়েছে। শুধু তাই নয়, মার খেয়েও তার দায়ের করা মামলাটিও গ্রহন করেনি পুলিশ।

এব্যাপারে নিয়াজুল ইসলামের বন্ধু মহলের একজন জানান, মাকসুদকে হত্যা করার পরেও বলা হয়েছিল মাকসুদ আওয়ামীলীগের কেউ না। অথচ সে ছিল তরুনলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি। নিয়াজুলকে বিএনপি-জামাতের লোকজন পিটালো, অস্ত্র ছিনতাই করলো অথচ তাকেই মামলার আসামী করা হলো। ত্যাগীদের চেয়ে কাউয়াদেরই সময় এখন ভালো।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের হকার ইস্যুতে মেয়র আইভীর পক্ষ থেকে ২০১৯ সালের ৪ ডিসেম্বর আসামী করা হয়েছিল আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগের ত্যাগী নেতাদের। যারা বরাবরেই বিএনপি-জামাত তথা স্বাধীনা বিরোধী, আওয়ামীলীগ সরকারের বিরোধীতাকরীদের বিরুদ্ধে সোচ্চার থাকেন। এমন নেতাদের বেছে বেছে মামলার আসামী করায় জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের শীর্ষ নেতাদের অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন।

সিটি কর্পোরেশনের ওই মামলায় নিয়াজুল ইসলাম খান ছাড়াও মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক শাহ নিজাম, সাংগঠনিক সম্পাদক জাকিরুল আলম হেলাল, মহানগর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাৎ হোসেন সাজনু, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি জুয়েল হোসেন, যুবলীগ নেতা জানে আলম বিপ্লব, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান সুজন, আওয়ামী লীগ নেতা নাসির উদ্দিন, যুবলীগ নেতা চঞ্চল মাহমুদকে আসামি করা হয়। ঘটনার ২২ মাস ১৮ দিন পর গৃহীত এই মামলায় অজ্ঞাত আরও ৯০০ থেকে ১০০০ জনকে আসামি করা হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2020 Telegraphnews24.com
Theme Dwonload From telegraphnews24.Com